শনিবার, ১১ই জুলাই ২০২০ ইং, ২৭শে আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |আর্কাইভ|
আল কুরআনে আধুনিক সাংবাদিকতার মৌলিক উপাদান
জুন ২০, ২০২০
আল কুরআনে আধুনিক সাংবাদিকতার মৌলিক উপাদান
আল কুরআন আমাদের সামনে একটি খবর কিভাবে ‎প্রচার করতে হবে, তাতে কি কি উপাদান থাকতে হবে, তার বিস্তারিত বিবরণ ‎‎পেশ করেছে।‎ আধুনিক সাংবাদিকতা বিষয়ের বিশেষজ্ঞ সাংবাদিকতার প্রফেসররা বলেন, ‎‘একটি সংবাদ বস্তুনিষ্ঠ, প্রচারযোগ্য ও গ্রহনযোগ্য হবার জন্য তাতে পাঁচটি প্রশ্নের ‎জবাব থাকা অবশ্যক। এই প্রশ্ন পাঁচটি একটি ইংরেজী বর্ণ W দিয়ে শুরু হয় ‎বলে তাকে Wh questions ‎ বলা হয়। সেই প্রশ্ন পাঁচটি হল: ‎

‎১. What ? কি ঘটেছে? ‎
‎২. When‎ ? কখন ঘটেছে? ‎
‎৩. Where‎? কোথায় ঘটেছে?‎
‎৪. Who‎ ? কে ঘটিয়েছে ?‎
‎৫. Why ? কেন ঘটেছে? ‎
‎কোনো সংবাদ শৈল্পিক দিক থেকে পরিপূর্ণ হবার জন্য এই পাঁচটি প্রশ্নের বা তার ‎অধিকাংশ প্রশ্নের জবাব জানা থাকা অবশ্যক। তবেই সংবাদটি বস্তুনিষ্ঠ ও প্রচারযোগ্য হয়। ‎কারণ এই প্রশ্নগুলোর বা তার অধিকাংশ প্রশ্নের জবাব জানা না থাকলে পাঠকের ‎মনে প্রশ্ন থেকে যায়।

সংবাদের এই পাঁচটি মৌলিক উপাদানের কথা আল কুরআন ভুলে যায়নি। আল ‎কুরআন তার সব কয়টি উপাদানের ব্যাখ্যা দান করেছে। পশ্চাতের সাংবাদিকতা ‎বিশেষজ্ঞরা এ উপাদানগুলো সম্পর্কে অবগত হবার হাজার বছর আগেই আল ‎কুরআন একটি বাস্তব ঘটনার বিবরণ দানের মাধ্যমে এসব উপাদান সুস্পষ্ট ‎করেছে।

লন্ডন থেকে প্রকাশিত ‘ওর্য়াল্ড’ নামক ম্যাগাজিনের ২৮ জুলাই ১৯৬৮ ‎খ্রি, মোতাবেক শাওয়াল ১৪০৬ হি. সংখ্যায় প্রফেসর আহমদ ইদরিস ‘আল ‎কুরআনে আধুনিক সাংবাদিকতার উপাদান’ বিষয়ের ব্যাখ্যা দান করেন। এ ‎উপাদানগুলো রয়েছে হুদহুদ ও সোলাইমান আ. এর ঘটনায় এভাবে:‎
‏﴿ فَقَالَ أَحَطتُ بِمَا لَمۡ تُحِطۡ بِهِۦ وَجِئۡتُكَ مِن سَبَإِۢ بِنَبَإٖ يَقِينٍ ٢٢ إِنِّي وَجَدتُّ ٱمۡرَأَةٗ ‏تَمۡلِكُهُمۡ وَأُوتِيَتۡ مِن كُلِّ شَيۡءٖ وَلَهَا عَرۡشٌ عَظِيمٞ ٢٣ وَجَدتُّهَا وَقَوۡمَهَا يَسۡجُدُونَ ‏لِلشَّمۡسِ مِن دُونِ ٱللَّهِ وَزَيَّنَ لَهُمُ ٱلشَّيۡطَٰنُ أَعۡمَٰلَهُمۡ فَصَدَّهُمۡ عَنِ ٱلسَّبِيلِ فَهُمۡ لَا ‏يَهۡتَدُونَ ٢٤ أَلَّاۤ يَسۡجُدُواْۤ لِلَّهِ ٱلَّذِي يُخۡرِجُ ٱلۡخَبۡءَ فِي ٱلسَّمَٰوَٰتِ وَٱلۡأَرۡضِ وَيَعۡلَمُ مَا ‏تُخۡفُونَ وَمَا تُعۡلِنُونَ ٢٥ ٱللَّهُ لَآ إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ رَبُّ ٱلۡعَرۡشِ ٱلۡعَظِيمِ۩ ٢٦ ﴾ [النمل: ٢٢، ‏‏٢٦] ‏
‘তারপর হুদহুদ এসে বলল, ‘আমি যা অবগত হয়েছি আপনি তা অবগত নন, ‎আমি সাবা থেকে আপনার জন্য নিশ্চিত খবর নিয়ে এসেছি’। ‘আমি এক নারীকে ‎‎দেখতে পেলাম, সে তাদের উপর রাজত্ব করছে। তাকে দেয়া হয়েছে সব কিছু। আর তার ‎আছে এক বিশাল সিংহাসন’। ‘আমি তাকে ও তার কওমকে দেখতে পেলাম তারা ‎আল্লাহর পরিবর্তে সূর্যকে সিজদা করছে। আর শয়তান তাদের কার্যাবলিকে ‎তাদের জন্য সৌন্দর্যমন্ডিত করে দিয়েছে এবং তাদেরকে সৎপথ থেকে নিবৃত্ত ‎করেছে, ফলে তারা হিদায়াত পায় না’। যাতে তারা আল্লাহকে সিজদা না করে, ‎যিনি আসমান ও যমীনের লুকায়িত বস্তুকে বের করেন। আর তোমরা যা গোপন ‎কর এবং তোমরা যা প্রকাশ কর তিনি সবই জানেন। আল্লাহ ছাড়া সত্যিকারের ‎‎কোনো ইলাহ নেই। তিনি মহা আরশের রব।’ [ সুরা আন নামাল:২২-২৬]‎

আল কুরআনে উল্লেখিত এই ঘটনার দিকে গভীরভাবে দৃষ্টি দিলে আমরা এই আয়াতগুলো ‎‎থেকে সাংবাদিকতা ও সংবাদশিল্পের এমন সব উপাদান বের করতে পারি যা ‎আধুনিক সাংবাদিকতার মূল ভিত্তিস্থলে পরিণত হতে পারে। সেই উপাদানগুলো ‎হল পাঁচটি (W) দিয়ে শুরু হওয়া পাঁচটি প্রশ্নের জবাব। আল কুরআন হুদহুদের ‎সংবাদে সাংবাদিকতার সেই মৌলিক পাঁচটি উপাদানের কথা তুলে ধরেছে। সেই ‎প্রশ্ন পাঁচটি হল:‎

‎১. কোথায় ঘটেছে? ‎وَجِئۡتُكَ مِن سَبَإِۢ ‏‎ ‘আমি সাবা থেকে আপনার জন্য নিশ্চিত ‎খবর নিয়ে এসেছি’।‎

‎২. কে ঘটিয়েছে? ‎وَجَدتُّ ٱمۡرَأَةٗ ‏‎ ‘আমি এক নারীকে দেখতে পেলাম। হুদহুদ ‎‎সেই নারী নাম নেয়নি; কারণ সে খবরটি শুনেছিল। তাই সে তার শ্রবণইন্দ্র ‎এর উপর নিভর করেছিল।‎

‎৩. কি ঘটেছে? ‎تَمۡلِكُهُمۡ وَأُوتِيَتۡ مِن كُلِّ شَيۡءٖ وَلَهَا عَرۡشٌ عَظِيمٞ ٢٣ وَجَدتُّهَا ‏وَقَوۡمَهَا يَسۡجُدُونَ لِلشَّمۡسِ مِن دُونِ ٱللَّهِ ‏‎ সে তাদের উপর রাজত্ব করছে। ‎তাকে দেয়া হয়েছে সব কিছু। আর তার আছে এক বিশাল সিংহাসন। ‘আমি ‎তাকে ও তার কওমকে দেখতে পেলাম তারা আল্লাহর পরিবর্তে সূর্যকে ‎সিজদা করছে।’ ‎

‎ ৪. কেন ঘটেছে? ‎زَيَّنَ لَهُمُ ٱلشَّيۡطَٰنُ أَعۡمَٰلَهُمۡ فَصَدَّهُمۡ عَنِ ٱلسَّبِيلِ فَهُمۡ لَا ‏يَهۡتَدُونَ‎ ‘কারণ শয়তান তাদের কার্যাবলিকে তাদের জন্য সৌন্দর্যমন্ডিত করে ‎দিয়েছে এবং তাদেরকে সৎপথ থেকে নিবৃত্ত করেছে, ফলে তারা হিদায়াত ‎পায় না’। ‎

‎৫. কখন ঘটেছে? এ প্রশ্নটির জবাব সংবাদ পরিবেশন থেকেই সুস্পষ্টভাবে বুঝা ‎যাচ্ছে। কারণ হুদহুদ সোলাইমান আ. এর কাছে তখনই এসেছে।‎

আলোচ্য আয়াতে হুদহুদ যে সংবাদটি পরিবেশন করেছে তা শৈল্পিক দিক থেকে ‎পরিপূর্ণ। তাই সংবাদটি শোনার পর শ্রোতার মনে কোনো ধরনের প্রশ্ন থাকে ‎না।‎ ‎ বরং মনে হয় সাংবাদিকতা বিশেষজ্ঞরা যেন আল কুরআন গবেষণা করেই ‎এই পাঁটি প্রশ্ন তা থেকে বের করেছেন।‎

প্রফেসর ড. মাহফুজুর রহমান
অধ্যাপক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

Print Friendly, PDF & Email