রবিবার, ১৭ই নভেম্বর ২০১৯ ইং, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |আর্কাইভ|
header-ads
যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদায় পালিত হলো পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম
ডিসেম্বর ২০, ২০১৮
যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদায় পালিত হলো পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম আজ বুধবার। দিনটি সূফীবাদে বিশ্বসী মুসলমানদের নিকট তাৎপর্যপূর্ণ। সারা দেশে যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদায় ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে দিবসটি পালিত হয়েছে। ইসলামের অন্যতম প্রচারক বড় পীর হজরত আবদুল কাদের জিলানি (র.)
হিজরি ৫৬১ সনের ১১ রবিউস সানি মৃত্যুবরণ করেন। তার ওফাত দিবস বিশ্বের মুসলমানদের কাছে ‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম’ নামে পরিচিত।

ফাতেহা অর্থ দোয়া  আর ‘ইয়াজদাহম’ ফারসি শব্দ, যার অর্থ এগারো। ‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম’ বলতে রবিউস সানি মাসের এগারো-এর ফাতেহা শরিফকে বোঝায়। এই পবিত্র ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম শরিফ ইমামুল আউলিয়া পীরানে পীর গাউসুল আযম দস্তগীর হজরত মুহিউদ্দিন আবদুল কাদের জিলানি (র.)-এর স্মরণে পালিত হয়।

দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ওয়াজ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (রহ.) ৪৭০ হিজরিতে ইরাকের জিলান নগরীতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা সায়্যেদ আবু সালেহ (রহ.) একজন বিখ্যাত বুজুর্গ ছিলেন। মাতা উম্মুল খায়ের ফাতেমা (রহ.) একজন বিদুষী রমণী ছিলেন। ছোটবেলা থেকেই তিনি মায়ের কাছে পবিত্র কোরআনের আঠারো পারা পর্যন্ত মুখস্থ করেন। অল্প বয়সেই সমস্ত কুরআন মুখস্থ করতে সক্ষম হন। পিতার নিকট সূফীবাদের আদর্শে অনুপ্রাণিত হন। পিতার মৃত্যুর পর ১৮ বছর বয়সে তত্কালীন মুসলিম দর্শনের বিদ্যাপীঠ মাদরাসায়ে নিজামিয়াতে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষা লাভ করেন। ২৪ হতে ৯১ বছর অর্থাত্ মৃত্যুর পূর্বদিন পর্যন্ত অবিরাম ইসলাম প্রচার ও প্রসারে নিয়োজিত ছিলেন। তিনি কাদেরিয়া তরিকার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি ধর্মীয় সভা-সমাবেশে মানুষের আত্মশুদ্ধি ও আত্মউন্নতির জন্য উপদেশ দান করেছেন। অনেক মহামূল্যবান গ্রন্থ রচনা করে গিয়েছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য: গুনিয়াতুত ত্বলেবীন, সিররুল আসরার, আল ফাতহুর রব্বানী, ফাতহুল গুয়ুব এবং আল-কাসিদা নামে একটি কাব্যগ্রন্থ। এই সমস্ত গ্রন্থ পৃথিবীর ২৩টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহমে আমরা এই মহান সাধকের জন্য আল্লাহর দরবারে মাগফেরাত কামনা করছি।

Print Friendly, PDF & Email