বৃহস্পতিবার, ২৮শে জানুয়ারি ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |আর্কাইভ|
শীতকালীন ঠান্ডা-কাশি সারাতে তুলসি পাতা
লেখক, মো. বিল্লাল হোসেন
নভেম্বর ২৪, ২০২০,  ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ
শীতকালীন ঠান্ডা-কাশি সারাতে তুলসি পাতা

ছোটবেলায় কোনোরকম ঠান্ডা-কাশি হলেই আম্মু আমাদেরকে যে পাতাটি খাওয়ার উপদেশ দিতেন তা হলো তুলসি পাতা। বলতেন তুলসি পাতা মধু দিয়ে খাও দেখবে তোমার ঠান্ডা-কাশি সেরে গেছে। হ্যাঁ ঠিক তাই তুলসি পাতা ও মধুর ঠান্ডা-কাশি সারাতে জুড়ি নেই। আমাদের দেশে এখন শীতকাল চলছে এমনকি গত কয়েকদিন হলো শীত জেকে বসেছে। ফলে ঠান্ডা, কাশি কিংবা জ্বরের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। এমতাবস্থায় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন ঔষধই হতে পারে আসল সমাধান। ঠিক তেমনই একটি সমাধান হলো তুলসি পাতা। প্রাচীনকাল থেকে এই পাতাগুলো হোম রিমেডি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলেই তুলসি গাছ দেখতে পাওয়া যায়। সুতরাং এটি খুবই সহজলভ্য একটি প্রতিকার। তুলসির রয়েছে নানা ধরনের গুণাগুণ। তন্মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি গুণ তুলে ধরা হলো।

ঠান্ডা-কাশি কমাতে

প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে ঠান্ডা, জ্বর ও কাশি সারাতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে তুলসি পাতা। তুলসি পাতা ও মধু একসাথে নিয়মিত কয়েকদিন খেলে ঠান্ডা কিংবা জ্বর সেরে যায় খুব সহজেই। আগেকার দিনে ঠান্ডা বা জ্বরের একমাত্র ঔষধই ছিল তুলসিপাতা  কারন এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নাই।

শ্বাসতন্ত্রের রোগ প্রতিরোধে

তুলসিতে রয়েছে ইসেনশিয়ায় ওয়েল যেমন লিনোলেয়িক এসিড যা আমাদের শ্বাসতন্ত্রের জন্য খুবই উপকারী। এছাড়া এই এসিড ত্বকের জন্য দারুণ উপকারী। ইসেনশিয়াল ওয়েল ছাড়াও এতে রয়েছে আরও কিছু উদ্বায়ী তেল যা অ্যালার্জি, ইনফেকশন ও রোগসৃষ্টিকারী জীবাণু হতে আমাদের দেহকে সুরক্ষা দেয়।

ব্রণ ও পিম্পল কমাতে

যাদের ব্রণ ও পিম্পল এর সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য দারুণ একটি টোটকা হলোতুলসি পাউডার। আপনি যদি এই সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে তুলসি পাউডারের সাথে নিম অথবা হলুদের গুড়া মিক্স করে ব্যবহার করুন দেখবেন সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে নিমেষেই।

ক্লিনিং ও ডিটক্সিফাইং এজেন্ট হিসেবে

তুলসি পাতা দেহের পরিষ্কারক ও ডিটক্সিফাইং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে থাকে। এতে উপস্থিত নানা ধরনের ফাইটোকেমিক্যালস ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস মূলত এই ভূমিকা পালন করে থাকে।

তুলসি চা

তুলসি পাতা দিয়ে চা বানিয়ে খেতে পারবেন। যা আপনাকে দেবে মানসিক প্রশান্তি। এছাড়া এই চা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতেও ভূমিকা রাখবে।

ইমিউনিটি বুস্টিংয়ে

এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ ও সি রয়েছে যা দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অত্যাবশ্যকীয় উপাদান।

আরও পড়ুনঃ খাদ্য নিরাপদ রাখার ৫ চাবিকাঠি

ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

এতে উপস্থিত বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে দারুণ ভূমিকা পালন করে।
তাই আপনি আপনার পরিবারকে এই শীতে সুরক্ষিত রাখতে চাইলে নিয়মিত তুলসি পাতা খান সুস্থ্য থাকুন।

লেখক ও শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ।

Print Friendly, PDF & Email
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

ফেসবুকে আমরা

Facebook Pagelike Widget
আরও পড়ুন