বুধবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং, ১৫ই আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |আর্কাইভ|
১৭ দফা দাবিতে উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন
নভেম্বর ৬, ২০১৯,  ১১:৪৩ পূর্বাহ্ণ
১৭ দফা দাবিতে উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭ দফা দাবিতে ২য় দিনের মতো আবারও আন্দোলন শুরু করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। আজ বুধবার (৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে প্রশাসনিক ভবনের সামনে তাদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু করে।

আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা জানান, সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের দায়িত্ব পালন করার সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সাধারণ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মাত্রারিক্ত হল ভাড়া, ক্রেডিট ফি, চিকিৎসা ফি আদায় করেছে এবং সেই ধারা অব্যাহত রয়েছে। এইসব মাত্রারিক্ত ফ্রি এর বিরুদ্ধে ও নানা অবকাঠামোগত উন্নয়নের দাবিতে শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

শিক্ষার্থীদের উল্লেখযোগ্য দাবিগুলা হলোঃ ১. ক্রেডিট ফিস ১০০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করতে হবে। ২. কেন্দ্র ফি ১০০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করতে হবে। ৩. পরিবহন ফি ৬০০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা করতে হবে। ৪. পরীক্ষায় ইমপ্রুভমেন্ট সিস্টেম চালু করতে হবে। ৫. বিভাগীয় উন্নয়ন ফি বাতিল করতে হবে। ৬. চিকিৎসা ফি ২২৫ টাকা থেকে ১০০ টাকা করতে হবে। ৭. প্রতি বিভাগে কমপক্ষে দুইজন নিয়মিত অধ্যাপক নিয়োগ দিতে হবে। ৮. ক্লাসে উপস্থিতি হার ৫০ শতাংশ করতে হবে এবং কোনো শিক্ষার্থীর উপস্থিতি ৫০ শতাংশের কম হলে তাকে জরিমানা সাপেক্ষে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দিতে হবে। ৯. হল ভাড়া রুমে ১৫০ টাকা ও গণরুমের ভাড়া প্রতি সিট প্রতি ২৫ টাকা করতে হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা অবকাঠামোগত উন্নয়নের দাবি জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ড. মোঃ শাহাজাহান জানান, শিক্ষার্থীরা গতকাল তাদের দাবী সমূহ আমাকে লিখিত আকারে দিয়েছে এবং আমরা মনে করি তাদের অধিকাংশ দাবী সমূহ যৌক্তিক। কিন্তু বেশ কিছু দাবীদাওয়া আইনানুযায়ী আমার ক্ষমতার বাহিরে। শিক্ষার্থীদের দাবী সমূহের মধ্যে অন্যতম দাবী ছিল ক্রেডিট ফি কমানো, হলের ভাড়া কমানো, চিকিৎসা ফি কমানো এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন তাদের এ দাবী সমূহ রিজেন্ট বোর্ডের সভার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে কিন্তু আমি রুটিন দ্বায়িত্বে থাকায় রিজেন্ট বোর্ডের সভা ডাকতে পারছি না, পূর্ণাঙ্গ উপাচার্য নিয়োগের আগ পর্যন্ত এ বিষয়গুলো মিমাংসা করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি শিক্ষার্থীদের নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা চালিয়ে যেতে আহবান করেন এবং বলেন নতুন উপাচার্য আসলে উক্ত বিষয় গুলো সমাধান করা হবে।

উল্লেখ্য, ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন টানা দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে ১৭ দফা দাবিতে কর্মসূচি পালন।

Print Friendly, PDF & Email
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

ফেসবুকে আমরা

Facebook Pagelike Widget
আরও পড়ুন